দুহাত ভরে অর্থ চান? ঘরে রাখুন শুধু এই পাঁচটি জিনিস, গৃহে আসবে সুখ সমৃদ্ধি!

গৃহে এই পাঁচটি জিনিস রাখলে মা লক্ষ্মী প্রসন্ন হয়ে থাকেন। জীবনে কখনো অর্থাভাব ঘটে না। সকলেই জীবনে সুখে শান্তিতে বসবাস করতে। তার জন্য অর্থ একটি প্রধান ভূমিকা পালন করে থাকে। আর্থিক সুখ স্বাচ্ছন্দ্য এবং সংসারকে সুখ শান্তিতে ভরিয়ে রাখতে সকলেই চাই কিন্তু সকলে এটি করে উঠতে পারেন না। কারণ আমাদের ধনসম্পত্তির দেবী মা লক্ষ্মীকে সন্তুষ্ট করতে না পারলে কখনো ধনসম্পত্তি ,অর্থপ্রাপ্তি ঘটেনা।

আর মা লক্ষ্মীকে সন্তুষ্ট করতে চাইলে করতে হয় বিশেষ কয়েকটি কাজ। ঘরে রাখতে হয় এই পাঁচটি জিনিস তাহলে মা লক্ষ্মীর কৃপা ঘরে বর্ষিত হয় এবং জীবন সুখ ও শান্তিতে ভরে ওঠে ।আর্থিক স্বচ্ছলতা দেখা দেয়। তাহলে চলুন জেনে নেওয়া যাক কোন পাঁচটি সেই জিনিস তা সম্পর্কে।

প্রথমত: ঘট, ঠাকুর ঘরে রাখুন একটি মাটির কিংবা পিতলের ছোট ঘট। তাতে মাঙ্গলিক চিহ্ন এঁকে পাঁচটি সিঁদুরের ফোটা দিন। আর যদি আপনার সামর্থ্য থাকে তাহলে ঠাকুর ঘরের মধ্যে রাখুন আটটি ছোট পদ্মফুল। এর ফলে আপনার আর্থিক সমস্ত প্রকার জটিলতা কেটে যাবে মা লক্ষ্মী প্রসন্ন হবেন।

দ্বিতীয়তঃ শঙ্খ। প্রতিটি হিন্দু ঘরে একটি করে শঙ্খ অবশ্যই থাকে। বিজ্ঞান সম্মতভাবে প্রমাণিত যে শঙ্খের ধ্বনিতে যেমন ঘরের বিষাক্ত পোকামাকড় দূর হয় তেমনই এই শঙ্খধ্বনিতে সমস্ত নেতিবাচক শক্তি, তাঁর কুপ্রভাব দূর হয়ে যায় । সংসারের মঙ্গলের ছায়া নেমে আসে। ব্যবসা-বাণিজ্যে লাভবান হওয়া যায় অর্থ ধনসম্পত্তির অভাব ঘটে না। তাই নিজের ঠাকুরঘরে অবশ্য‌ই একটি শঙ্খ রাখুন।

তৃতীয়তঃ ঘন্টা। ঘন্টা প্রতিটি মন্দিরে থাকে কারণ ঘন্টার শব্দে মানুষের মস্তিষ্কের যেমন বিকাশ ঘটে তেমনই এর ধ্বনিতে মন্দিরের আশেপাশের সমস্ত কুপ্রভাব কেটে যায়। তাই অবশ্যই ঠাকুরঘরে ঘণ্টা রাখুন
চতুর্থত: স্বস্তিক চিহ্ন। ঠাকুর ঘরে দেবতার পাশে কোনো ধাতব পাত্রে এঁকে রাখুন স্বস্তিক চিহ্ন। আর এটা অবশ্যই সিঁদুর দিয়ে অংকন করুন এর ফলে আপনার সংসারে সকলের উন্নতি ঘটবে। তাছাড়াও মাতা লক্ষী প্রসন্ন হবেন এবং আপনারা জীবনে ধন সম্পত্তির অভাব ঘটবে না।

পঞ্চমত: প্রদীপ ,ঠাকুর ঘরে প্রদীপ অবশ্যই রাখা উচিত। কারণ প্রদীপ প্রজ্জ্বলন করলে সেই আলোয় আলোকিত হয়ে সকল অন্ধকার দূরিভূত হয়ে যায় ।জীবন আলোকিত হয়ে ওঠে। লক্ষ্মী পূজার সময় ঘী এর প্রদীপ প্রজ্জ্বলন করে সেই প্রদীপের মধ্যে ফেলে দিন একটু গূঢ়।

এতে মাতা লক্ষী আপনার প্রতি সন্তুষ্ট হবেন এবং সমস্ত কুপ্রভাব কাটিয়ে আপনার মঙ্গল করবে। এছাড়া ঠাকুরঘরে কখনো শিবলিঙ্গ, শঙ্খ প্রদীপ ও সোনাদানা খচিত পাথর মাটিতে রাখবেন না। আর হিন্দু ধর্মে বলা হয় যে রবিবার মুসুরির ডাল ও লাল জাতীয় কোন খাবার খাওয়া উচিত নয়।এই সমস্ত কাজ গুলো সঠিক ভাবে নিয়ম করে মেনে চললে আপনার সুখ শান্তির অভাব ঘটবে না এবং অর্থাভাব‌ও ঘটবে না।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও পড়ুন

Back to top button