দেশে ক্রমাগত বেড়েই চলছে বেকারত্বের হার, প্রধানমন্ত্রীকে নজিরবিহীন আ’ক্র’মণ নুসরতের!

বর্তমানে করোনা কেড়েছে দেশের স্বাভাবিক পরিস্থিতি। সারা পৃথিবীর অর্থনৈতিক পরিস্থিতি হয়েছে ভূলুণ্ঠিত। ভারতেও এর ব্যতিক্রম হয়নি। এমনিতেই ভারতে দিনের-পর-দিন বেকারত্ব বৃদ্ধি পাচ্ছে। অন্যান্য দেশের তুলনায় ভারতের অতি দ্রুত হারে বাড়ছে বেকারত্ব। এতে মরার উপর খাঁড়ার ঘা হয়ে দাঁড়িয়েছে করোনার মহা-মা-রী। করোনা মহা-মা-রী-র এই ভয়া-বহ আবহে রুজি-রোজগার বন্ধ হয়েছে বহু মানুষের।

অনেকেই শেষ সঞ্চয় টুকুও হারিয়ে সর্বস্বান্ত হয়েছেন। বাইরের রাজ্য থেকে কাজ হারিয়ে নিজেদের রাজ্যে ফিরে আসছেন পরিযায়ী শ্রমিক রা। সারাদেশে একটা অচলাবস্থার পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে। এই আবহের মধ্যে আবার রাজনৈতিক নেতাদের একে অপরকে কাদা ছোঁড়াছুঁড়ি করার বিরাম নেই। দেশের এই ভয়া-বহ পরিস্থিতিতে একে অপরের সাথে কাঁধ মিলিয়ে চলার পরিবর্তে রাজনৈতিক নেতা মন্ত্রীরা মেতেছেন কলহ- বিবাদে।

জানা গিয়েছে যুবক সমাজের প্রায় 41 লক্ষ মানুষ কাজ হারিয়েছেন। যুবসমাজ অবসাদের অন্ধকারে নিক্ষেপিত হয়েছে। সারাদেশের এই দুর্দশা অত্যন্ত শঙ্কিত করেছে বসিরহাট সংসদ নুসরত জাহান কে। তিনি নিজের সমস্ত ক্ষো-ভ কুকুরে দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রীর বি-রু-দ্ধে। সাংসদ নুসরত জাহান হ্যাশট্যাগ ব্যবহার করে নরেন্দ্র মোদির উদ্দেশ্যে মন্তব্য করেছেন, “বর্তমানে আমাদের দেশে এত জনসংখ্যা, দেশের যুবসমাজের জন্য প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি কি কাজ করছেন?

দেশের যুবসমাজের জন্য তিনি কি বেকারত্বই স্থির করে রেখেছেন? দেশের যুবসমাজের ভবিষ্যতের পরিস্থিতি বুঝতে আপনি ব্যর্থ হয়েছেন। দেশের যুবসমাজের ভবিষ্যৎ কে আপনি অন্ধকারের দিকে নিক্ষেপ করেছেন। এই বিষয়টি অতি লজ্জাজনক।”
এই কথাগুলি টুইট করে প্রধানমন্ত্রীর আলোচনায় সোচ্চার হয়েছেন বসিরহাটের তৃণমূল সাংসদ। দেশজুড়ে গত মার্চ মাস থেকে চলা লকডাউন এর ফলে ধুঁ-ক-ছে অর্থনৈতিক পরিস্থিতি। এখনো কবে সবকিছু স্বাভাবিক হয়ে সেই চেনা-পরিচিত চিত্রটা ফিরে আসবে সে সম্পর্কে সবকিছুই এখনো ধোঁয়াশায়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও পড়ুন

Back to top button