১০ কিমি দূর থেকে শোনা যাবে শব্দ, ওজন প্রায় ৬১৩ কেজি, উচ্চতা ৪.১ ফুট, রামেশ্বরম থেকে আজ অযোধ্যা পৌঁছল রামমন্দিরের ঘণ্টা!

নিজস্ব প্রতিবেদন:-দীর্ঘ ৫০০ বছরের ইতিহাসকে আবার চাঙ্গা করতে চলেছে উত্তরপ্রদেশে। উত্তরপ্রদেশের অযোধ্যাতে তৈরি হচ্ছে দেশের সবথেকে বড় রাম মন্দির । যার ভীত ৪০০ কেজি সোনা দিয়ে তৈরি করা হবে বলে জানা গিয়েছিল। যদিও রাম মন্দির নিয়ে প্রথম দিকে শুরু হয়েছিল প্রচন্ড বিতর্ক । রাজনৈতিক কোলাহলে পড়ে রীতিমতো অনেক মানুষকে এর ফল ভুগতে হয়েছে। কিন্তু তবুও হিন্দু ধর্মের প্রতীক হিসেবে রাম মন্দির হওয়া অত্যন্ত জরুরী ।এমনটাই মনে করে থাকেন উত্তরপ্রদেশে বাসিন্দারা।

আমাদের মধ্যে অনেকেই বছরে কোনো না কোনো সময়ে ঈশ্বর লাভের আশায় তীর্থ দিয়ে থাকি ।কেউ কেদারনাথ জান, কেউ জান বদ্রীনাথ বা কেউ অন্য কোথাও। তবে আর বেশ কয়েক বছর পর মানুষজন রাম মন্দির যাবে । কারণ উত্তরপ্রদেশে তৈরি হচ্ছে হিন্দু ধর্মের প্রতীক হিসেবে পৃথিবীর সবথেকে বড় রাম মন্দির । রাম মন্দির কে ঘিরে রাম যাত্রা গত ১৭ সেপ্টেম্বর থেকে শুরু হয়েছে।

চেন্নাইয়ের ‘লিগ্যাল রাইটস কাউন্সিল’ নামে একটি সংগঠন এই রথযাত্রা আয়োজন করেছিল। ঘণ্টা নিয়ে ১০টি রাজ্য ঘুরে সাড়ে চার হাজার কিলোমিটারেরও বেশি পথ পাড়ি দিয়েছে এই রথ। ঘণ্টাটির ওজন ৬১৩ কেজি। উচ্চতা ৪.১ ফুট। ঘণ্টাটির গায়ে ‘জয় শ্রীরাম’ লেখা আছে। এই ঘণ্টা যখন বাজবে, ১০ কিমি দূর পর্যন্ত আওয়াজ শোনা যাবে। এছাড়া ‘ওঁ’ শব্দ ধ্বনিত হবে। তামিলনাড়ুর রামেশ্বরম থেকে উত্তরপ্রদেশে পৌঁছালে বিশালাকৃতির ঘন্টা।

রথের চালক রাজলক্ষ্মী মাদা জানিয়েছেন, রথে রাম, সীতা, লক্ষ্মণ, হনুমান ও গণেশের ব্রোঞ্জের মূর্তি ছিল। এই মূর্তিগুলি রাম মন্দির ট্রাস্টের সম্পাদক চম্পত রাইয়ের হাতে তুলে দেওয়া হয়েছে। এর পাশাপাশি রাম মন্দির যেহেতু হিন্দু ধর্মের প্রতীক তাই এই রাম মন্দির কে সাজাতে বা সাজিয়ে তুলতে কোনরকম খামতি রাখবেনা উত্তরপ্রদেশ সরকার ।এমনটাই মনে করছেন অনেকে ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও পড়ুন

Back to top button