জিন্সের প্যান্টে ঢুকে গেল সাপ, প্রা’ণ বাঁ’চাতে ৭ ঘন্টা ধরে চলল লা’ফ-ঝাঁ’প, ভাইরাল ভিডিও

বর্তমানে সোশ্যাল মিডিয়ার হাত ধরে আমরা পরিচিত হচ্ছি নিত্য নতুন অনেক বিষয়ের সাথে। অনেক অজানা ঘটনা আমাদের সম্মুখে উপস্থাপিত হচ্ছে। বর্তমান যুগে একঘেয়ে জীবনে অবসর যাপনের অন্যতম মাধ্যম হল এই সোশ্যাল মিডিয়া। সোশ্যাল মিডিয়ায় অনেকেই তাঁদের প্রতিভার বিচ্ছুরণ ঘটিয়ে থাকেন। নিত্য নতুন কত‌ই না অজানা প্রতিভা বিকশিত হচ্ছে এই সোশ্যাল মিডিয়ার হাত ধরে। অনেকেই এই প্ল্যাটফর্ম বেছে নিয়েছে তাঁদের সু-প্ত প্রতিভাকে সকলের সামনে মেলে ধরার জন্য।

কাউকে দেখা যায় গান করতে, কাউকে নাচ আবার কেউ কেউ সুমধুর কন্ঠে আবৃত্তি শুনিয়ে থাকেন সোশ্যাল মিডিয়ায়। আবার অনেকে নানান কসরৎ দেখিয়ে অভিভূত করে দেন নেটিজেনদের। সেইসব ভিডিও বা ফটো গুলো মূহুর্তের মধ্যে নেটিজেনদের মনের মণিকোঠায় জায়গা করে নেয়। তবে সোশ্যাল মিডিয়ায় এমন কিছু ঘটনা মাঝে মাঝে উপস্থিত হয় যা দেখে আমরা রীতিমতো বাকরুদ্ধ হয়ে যাই। সেই ঘটনা দেখে প্রথম কথা শি-উ-রে উঠতে হয় আমাদের। প্রায়শই এরকম কিছু ঘটনা আমরা সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে দেখে থাকি। এ রকমই একটি ঘটনা সোশ্যাল মিডিয়ায় এসে উপস্থিত হয়েছে।

জীবজগতের মধ্যে সাপ হল এমন এক প্রাণী, যার নাম শুনলেই মানুষ ভয়ে কেঁ-পে ওঠে। কিন্তু আদতে সাপ নিরীহ প্রাণী। এরা একমাত্র আক্রান্ত হবার ভ-য় পেলেই তখন কামড়ায়। না হলে সাপ বরাবরই মানুষের সংস্পর্শ এড়িয়ে চলতে চায়।

উত্তরপ্রদেশের মির্জাপুরে এক বি-ষা-ক্ত সাপের ভ-য়ে এক যুবকের কান্ড নেটিজেনদের স্তম্ভিত করে দিয়েছে। বিদ্যুতের খুঁটি লাগানোর কাজে নিযুক্ত হয়েছিলেন বেশ কয়েকজন শ্রমিক। রাতের খাবার খেয়ে তাঁরা ঘুমিয়ে পড়েছিলেন। তখনই লবলেশ কুমার নামক এক ঘুমন্ত শ্রমিকের জামার ভিতর দিয়ে একটি বিষাক্ত সাপ ঢুকে পড়ে, এই সাপটি লবলেশের জিন্সের প্যান্টের ভিতর চলে যায়। জেগে উঠেই যুবকটি বুঝতে পারেন বিষয়টি।

কিন্তু সাপটিকে কিভাবে তিনি বার করবেন তা কিছুতেই বুঝতে পারেননি, প্রা-ণভ-য়ে তাঁর প্যান্ট অর্ধেক খুলে থাম ধরে একটানা সারারাত 7 ঘণ্টা দাঁড়িয়ে থাকেন সেই যুবক। তারপর ভোরবেলায় সাপুড়ে কে সেখানে নিয়ে আসা হয়। সাপুড়ে খুব দক্ষতার সাথে, কায়দা করে সাপটিকে লবলেশের প্যান্ট থেকে বের করে আনেন। তারপরই স্বস্তি পান লবলেশ। সেই সাথে হাঁফ ছেড়ে বাঁচেন নেটিজেনরা।ঘটনাটি ঘটেছে উত্তরপ্রদেশের জামালপুর থানা এলাকার সিকান্দারপুর গ্রামে।এই ভিডিওটি সোশ্যাল মিডিয়ায় ব্যাপক ভাইরাল হয়েছে। প্রাণে বাঁচার জন্য মানুষ যে কি করতে পারে, তার চরম নিদর্শন হল এই ভিডিওটি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও পড়ুন

Back to top button