“তিন স্বামীর মধ্যে কেউই আমাকে সুখ দেয়নি!” – সাক্ষাৎকার দিতে গিয়ে হাউ হাউ করে কেঁ’দে ফেললেন অভিনেত্রী শ্রাবন্তী! মুহূর্তে ভাইরাল হল ভিডিও।

নিজস্ব প্রতিবেদন :- বাস্তব হোক বা সোশ্যাল মিডিয়ার একাধিকবার তাকে তার ব্যক্তিগত জীবনের জন্য কুরুচিকর মন্তব্যের মুখোমুখি হতে হয়েছে । তবুও কিন্তু তিনি থেমে থাকেননি ।তিনি এই সমস্ত বিষয়গুলি কে পাত্তা না দিয়ে এগিয়ে গেছেন নিজের লক্ষ্যে ।তার পাশাপাশি চেয়েছিলেন এই বাংলার একজন দায়িত্ববান রাজনীতিবিদ হতে । কিন্তু সেই স্বপ্ন আর পূরণ হলো না এবারে । যদিও চেষ্টার কোনো রকম কোনো খামতি রাখেনি অভিনেত্রী ।

নিজের প্রতিটি বাড়ির দৌড়াতে গিয়ে প্রার্থনা করেছিলেন যাতে তাকে ভোটে জয় যুক্ত করা হয় কিন্তু তেমনটা বাস্তবে হলো না এক সাক্ষাৎকারে অভিনেত্রী তুলে ধরলেন নিজের জীবনের ক-ষ্ট গুলো । অভিনয় জগৎ হোক বা রাজনৈতিক জগত সব ক্ষেত্রে কিন্তু অভিনেত্রী বাকি সকলে থেকে কিছুটা হলেও আলাদা । ব্যক্তিগত জীবনে পরপর তিনবার বিয়ে হয়ে যাওয়ার পরও এখনো পর্যন্ত থামেনি প্রেম করার শখ ।

শোনা যাচ্ছে চতুর্থ বারের মতন সম্পর্কে লিপ্ত হয়েছে অভিনেত্রী শ্রাবন্তী চট্টোপাধ্যায় তার পাশাপাশি আমরা দেখেছিলাম বাংলাতে বিধানসভা ভোটের আগে ভারতীয় জনতা পার্টিতে যোগদান করেছিল শ্রাবন্তী চ্যাটার্জী ।কিন্তু বিরোধী দল তৃণমূল কংগ্রেস এর কাছে ব্যাপকভাবে পরাজিত হয় তিনি এবার এক সাক্ষাৎকারে সাক্ষ্য দিতে গিয়ে কান্নায় ভেঙ্গে পড়লেন শ্রাবন্তী চ্যাটার্জী। তবে সম্প্রতি একটি সংবাদমাধ্যমে সাক্ষাত্কার দিতে গিয়ে অভিনেত্রী কেঁ-দে ফে-লল ।

এবং তিনি বলেন যে যথেষ্ট পরিমাণে স্ট্রাগল করেছেন তিনি। কিন্তু কিসের স্ট্রাগল সে ব্যাপারে কিছু জানায়নি বিস্তারিত । ভিডিওটি দেখলে আপনি বুঝতে পারবেন যে অভিনেত্রী পরিষ্কারভাবে তার ব্যক্তিগত জীবনে স্ট্রাগলের কথা বলেছেন কি কঠোর পরিশ্রম করে তিনি যে আজকে এই জায়গায় এসে উপস্থিত হয়েছে তা হয়তো দর্শকেরা বুঝতে পারে না সেই কথা বলতে গিয়ে কান্নায় ভেঙে পড়েন অভিনেত্রী।

তিনি অনুরোধ করেন সকলের উদ্দেশ্যে যে তৃণমূলের এই কাটমানি গরু পাচার কয়লা পাচার থেকে মুক্তি পেতে, বেকার যুবকদের বেকারত্ব থেকে মুক্তি দিতে এবং মোদিজীর সোনার বাংলা তৈরি করতে মানুষ যেন তাকে ভোট দিয়ে তাদের পাশে থাকার সুযোগ করে দেন। । তার পাশাপাশি তিনি বলেন যে তৃণমূল কংগ্রেসে তিনি নাকি যোগ্য সম্মান পাচ্ছিলেন না । তাই তিনি যোগ দিয়েছেন বিজেপি তে । এই মুহূর্তে সেই চিত্র সবার মুঠোফোনে ঘুরছে ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও পড়ুন

Back to top button