ধর্ম মুসলিম, এটাই একমাত্র অপ’রা’ধ! বের করে দেওয়া হল ১০ জন মাদ্রাসা শিক্ষককে!

ধর্ম এমন একটা শব্দ যা মানুষকে আলাদা করে দেয় আবার মানুষকে এক করে রাখে। কিন্তু কেমন হবে যদি এই ধর্মের জন্য আপনি কোথাও আশ্রয় না পান ?। ব্যাপারটা শুনে অবাক হবেন নিশ্চয়ই আপনিও ? এর আগে হয়তো শুনেছেন ধর্মীয় গোঁড়ামির কারণে বহু কিছু থেকে বাদ পড়েছে বহু মানুষ ।

এবার সেই ধর্মের কারণে মিলল না আশ্রয় । ঘটনাটি ঘটেছে সল্টলেকে মহানগরীর বুকে এরকম একটি ঘটনার তীব্র নিন্দা জানিয়েছে অনেকে । শুধুমাত্র ধর্মের কারণে ১০ জন মাদ্রাসার স্কুল শিক্ষককে বের করে দিলো সল্টলেকের একটি গেস্ট হাউস । তাদের অপরাধ যে তারা ধর্মে মুসলিম । ঠিক এভাবে আর কতদিন এ ধর্মকে হাতিয়ার করে বিভেদ সৃষ্টি করবে ? প্রশ্ন অনেকের ।

বিকাশ ভবনের ডাইরেক্টর অফ মাদ্রাসা এডুকেশন বিভাগে কিছু জরুরী কাজ থাকায় সোমবার ভোরে মালদহ থেকে কলকাতায় আসেন ১০ জন মাদ্রাসা শিক্ষক। ওই শিক্ষকরা জানান “মালদা থেকে কলকাতায় বিশেষ কাজের জন্য এসেছিলো কোলকাতা ।১২০০ টাকা দিয়ে DL 39 এর তিনটি রুম বুক করেন তারা ।

কিন্তু বি-প-দ হলো যখন কাজ শেষে তারা গেস্ট হাউসে আসে তখন রেজিস্টার এ সই করার পর তাদের জানানো হয় যে রুম ফাঁকা নেই। অথচ তারা বারোশো টাকা দিয়ে আগে থেকেই তিনটে রুম বুক করে রেখেছিল । এরপর তাদের সেখান থেকে CL 164 বাড়ির গেস্ট হাউস এ পাঠানো হয়। সেখানে ঘন্টা তিনেক অপেক্ষা করার পর তাদেরকে অন্যত্র চলে যাওয়ার জন্য বলে দেওয়া হয় ।

তারা আরো জানান যে তারা বৈধ পরিচয় পত্র দেখানোর পরও কেন তাদেরকে শুধুমাত্র ধর্মে মুসলিম বলে বাইরে বের করে দেয়া হলো ” এরপর প্রচন্ড বৃষ্টি তে একটি স্টেশন চত্বরে তারা আশ্রয় নেয়। ঘটনাটি মুখ্যমন্ত্রীর কাছে জানানো হয়েছে ।যদিও এ বিষয়ে গেস্ট হাউজ এর কর্মকর্তা ব্যাপারটা সম্পূর্ণ অস্বীকার করেছেন তিনি বলেছেন ” আমার এখানে কিছু হয়নি। ওনাদের এখানে তিন ঘন্টা রাখার জন্য পাঠানো হয়েছিল। তাঁদেরকে সাময়িকভাবে যে ঘরে থাকতে দেওয়া হয়েছিল, সেটা আগে থাকতেই বুকিং করা ছিল। তাই ১০ টা বাজতেই তাঁদের অন্যত্র চলে যাওয়ার কথা বলা হয়। এখানে কোন ধর্মকে আঘাত করার জন্য কিছু করা হয়নি’

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও পড়ুন

Back to top button