দেশের ৩০ হাজার গ্রামে তৈরি হবে অক্সিজেন টেস্ট সেন্টার, শরীরে অক্সিজেনের মাত্রা কতটা, রোগের লক্ষণ আছে কিনা, বাড়ি বাড়ি ঘুরে সার্ভে হবে -কেজরিওয়াল

বর্তমানে ক’রো’না ভ’য়া’বহ স’ন্ত্রা’স সৃষ্টি করেছে সারা পৃথিবী জুড়ে। ভারতও এর হাত থেকে রে’হাই পায়নি। সারা ভারতে এখনো পর্যন্ত 27 লক্ষ 2 হাজার 742 জন ক’রো’নার গ্রা’সে পড়েছেন। 51 হাজার 797 জনের মৃ’ত্যু হয়েছে ভারতে এখনো পর্যন্ত।এই আ’ব’হের মধ্যেই দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়াল ঘোষণা করলেন এক মানবিক প্রকল্প। হোম আ’ই’সো’লেশন এ থাকা করোনা রোগীদের শা’রী’রিক অবস্থা খুঁটিয়ে দেখার জন্য প্রত্যেক ঘরে ঘরে পালস অক্সিমিটার পৌঁছানোর কথা ঘোষণা করেছিলেন অরবিন্দ বাবু।

এবার আরেক নতুন ঘোষণা করে তিনি জানিয়েছেন যে, ক’রো’না’র গ্রা’সে পড়ে মানুষের শরীরে অক্সিজেনের মাত্রা অনেক কমে যাচ্ছে যার দরুন রোগীরা তী’ব্র শ্বা’স’ক’ষ্টের শি’কা’র হচ্ছেন। মৃদু সং-ক্র-ম-ণে-র ক্ষেত্রেও অনেকের শ্বা’স’ক’ষ্ট হচ্ছে। তাই ঘরে ঘরে গিয়ে সার্ভে করা একান্তই প্রয়োজন। তাই দেশের প্র’ত্যন্ত এলাকা গুলিতে অক্সিজেন টেস্ট সেন্টার খোলার কথা ঘোষণা করেছেন কেজরিওয়াল। এখানে যে স্পেশাল টিম কাজ করবে তাদেরকে বলা হবে অক্সি মিত্র।

ভিডিও কনফারেন্সে এই প্রকল্পের ঘোষণা করেন অরবিন্দ বাবু। তিনি বলেছেন পালস অক্সিমিটার ডিভাইসে ধ’রা পড়বে রোগীর শরীরে অক্সিজেনের মাত্রা কি পরিমাণে রয়েছে। যদি দেখা যায় বি’প’দের ঝুঁ’কি রয়েছে তাহলে আগে থেকেই ব্যাবস্থা নেওয়া সম্ভব হবে। অক্সিমিটার নামক এই ডিভাইস দিয়ে র’ক্তে অক্সিজেনের মাত্রা পরিমাপ করা যায়। এই ডিভাইস থেকে বের হওয়া রেড এবং ইনফারেড রশ্নির সাহায্যে পরিমাপ করা যায় র’ক্তে’র হিমোগ্লোবিনে শতকরা কত অংশ অক্সিজেন রয়েছে।

ব্লা’ড অক্সিজেন স্যাচুরেশন পরিমাপ করা যায় এই ডিভাইসের মাধ্যমে। যদি এর মাত্রা শতকরা 95 ভাগ এর বেশি থাকে তাহলে সেই লেভেলকে স্বা’ভা’বিক বলে ধরা হয়। আর যদি এই মাত্রা শতকরা ৯০ ভাগের নীচে নেমে যায় তাহলে এটি অ’ত্য’ন্ত বি’প’দজ’নক বলে ধরা হয়।কেজরিওয়াল ঘোষণা করেছেন দেশের প্রায় 30,000 গ্রামে তৈরি হবে অক্সিজেন টেস্ট সেন্টার। স্পেশাল টিম ঘরে ঘরে গিয়ে অক্সিজেনের মাত্রা পরিমাপ করবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও পড়ুন

Back to top button