মিললো ভ’য়া’বহ তথ্য, দু টুকরো হয়ে গেছে পৃথিবীর চৌম্বক ক্ষেত্র!

বর্তমানে ক’রোনা মহা’মারী ভ’য়াবহ স’ন্ত্রা’স চালাচ্ছে সারা পৃথিবীর বুক জুড়ে। সারা পৃথিবীতে একটা করাল মৃ’ত্যুর ছায়া আচ্ছন্ন করেছে মানব সভ্যতা কে। থ-ম-কে গিয়েছে সভ্যতার চাকা। চারিদিকে ধ্বনিত হচ্ছে মানুষের আ’র্তনাদ। যেন পৃথিবী পুরোপুরি থমকে গিয়েছে। তার ওপর ম’রার উপর খা’ড়ার ঘা হয়ে পড়েছে নানান প্রাকৃতিক বি-প-র্য-য় গুলি। ইতিমধ্যেই নাসা দাবি করেছে এক ভ’য়াব’হ তথ্য।

নাসা দাবি করেছে যে, পৃথিবীর চৌম্বক ক্ষেত্রে ক্রমশ ফাটল ধরেছে, এমনকি এই চৌম্বক ক্ষেত্র দু টুকরো হয়ে গিয়েছে। এর পরিণাম স্বরূপ টেলিযোগাযোগসহ বিদ্যুৎ সংযোগ, ইন্টারনেট পরিষেবা সম্পূর্ণরূপে বন্ধ হয়ে যেতে পারে। এর পাশাপাশি পৃথিবীতে ক্ষ’তি’কর প্রভাব ফেলবে সূর্য। গোটা পৃথিবী জুড়ে ছড়িয়ে আছে এক বিরাট চুম্বক ক্ষেত্র যা পৃথিবীর অভ্যন্তর থেকে শুরু করে মহাকাশ পর্যন্ত বিস্তৃত রয়েছে।

এই চৌম্বক ক্ষেত্রের ভূপৃষ্ঠে আয়তন হল 25 থেকে 65 মাইক্রো টেসলা। এই চৌম্বক ক্ষেত্র আমাদের মহাজাগতিক রশ্মি থেকে রক্ষাকবচ হিসেবে কাজ করে চলেছে। এই চৌম্বকীয় ক্ষেত্রের উপর ফা-ট-ল দেখা দেওয়ার ফলে পৃথিবীর সূর্যের বিকিরণ থেকে আমাদের রক্ষা করার বিষয়টি অত্যন্ত ধ্বং’সের দিকে চালিত হচ্ছে। দক্ষিণ আটলান্টিক অ্যানোমালি প্রশস্ত হওয়ার দরুন দূর্বল অঞ্চলটি সূর্যের ক্ষ’তি’কারক সৌর বিকিরণ কে পৃথিবী পৃষ্ঠের নিকটে সাহায্য করছে।

এই ফাটলের ফলে কৃত্রিম উপগ্রহ গুলি ও ক্ষ’তি’গ্রস্ত হবে। এই প্রসঙ্গে জানা গিয়েছে শুরু হয়েছে একটি সোলার মিনিমাম। 1816 সালে নাকি কোন গ্রীষ্মকাল ছিল না। সেইদিন নাকি আবার ফিরে আসতে চলেছে। এই পরিস্থিতি টাকেই বলা হয় সোলার মিনিমাম। সরাসরি পৃথিবী এর ফলে খুবই ক্ষতিগ্রস্ত হবে বলে জানা গিয়েছে।

কসমিক রে বের হবে সূর্য থেকে যার ফলে পৃথিবীর বা’য়ুমণ্ডল ভীষ’ণভাবে ক্ষ’তিগ্রস্ত হবে, কৃষি ক্ষেত্র বি’পর্যস্ত হবে, ভূমি’ক’ম্প ব’জ্র’পাত অত্যধিক মাত্রায় বাড়বে। তাপমাত্রা কমে যাবে দু ডিগ্রির বেশি। মহাকাশচারীদের ভীষণভাবে ক্ষ’তি হতে পারে। শীতপ্রধান দেশের তাপমাত্রা কমে যাওয়ায় খুবই সমস্যায় পড়বেন অধিবাসীরা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও পড়ুন

Back to top button