শুধু একবার ক্ষমতায় আসতে দিন, JCB চালিয়ে তৃণমূলের পার্টি অফিসগুলো গুঁ’ড়িয়ে দেব: তোপ অনুপম হাজরার

নিজস্ব সংবাদদাতা: “সঙ্গে গঙ্গা জল নিয়ে এসেছিলাম। তৃণমূল এতটাই নোংরা যে গঙ্গা জল দিয়ে একটু শুদ্ধ করলাম জায়গাগুলি”- শান্তিনিকেতন সফরে এসে এমন চাঁচাছোলা ভাষায় রাজ্যের শা-স-ক দলকে আ-ক্র-মন করলেন বিজেপি নেতা অনুপম হাজরা। আরো আ-ক্র-ম-নাত্মক মনোভাব একধাপ এগিয়ে নিয়ে বললেন,“ক্ষমতায় আসতে দিন, JCB চলবে তৃণমূলের পার্টি অফিসগুলিতে। গুঁড়িয়ে দেওয়া হবে।”।

শেষ কয়েক মাসে বিশ্বভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনিক কাজকর্ম নিয়ে বিভিন্ন মহলে অসন্তোষ দেখা দিয়েছিল। বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাম্পাসের বিভিন্ন জায়গায় প্রাচীর নির্মাণ নিয়ে এই অসন্তোষ চরমে পৌঁছোয়। বিভিন্ন পক্ষ থেকে প্র-তি-বাদ চলতে থাকে। এর মধ্যেই প্রতিবাদ স্বরূপ বিশ্ববিদ্যালয়ে জেসিবি এনে একাংশ ভেঙে দেওয়া হয়।

বিশ্ববিদ্যালয়ে আসার পর তিনি বিশ্বভারতীর উপাচার্য বিদ্যুৎ চক্রবর্তীর সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন অনুপম হাজরা। পরবর্তীতে পৌষ মেলার মাঠ পরিদর্শন করেন তিনি, পরে ভা-ঙা জায়গা গুলো গঙ্গাজল দিয়ে শোধন করেন।

সেই প্রসঙ্গেই অনুপম হাজরা মন্তব্য করে বলেন,“ছোটো থেকে বড় হওয়া এই প্রতিষ্ঠানে। এখানে তৃণমূলের গু-ন্ডা-বাহিনী যেভাবে তা-ণ্ড-ব চালিয়েছে সেই জায়গাগুলি ঘুরে দেখলাম। সঙ্গে গঙ্গা জল নিয়ে এসেছিলাম। তৃণমূল এতটাই নোং-রা যে গঙ্গা জল দিয়ে একটু শুদ্ধ করলাম জায়গাগুলি। বিশ্বভারতীতে তৃণমূলপন্থী কিছু দু-ষ্কৃ-তী বছরের পর বছর এই জায়গাটাকে নষ্ট করছে তাদের চিহ্নিত করে বের করতে হবে। এবিষয়ে উপাচার্যের সঙ্গে আলোচনা করলাম।”

এর তিনি আরো যোগ করেন,“বিশ্বভারতীতে এইরকম তাণ্ডবলীলা কেউ কোনও দিন দেখেনি। শুধু বিশ্বভারতীতে নয়, সিনেমাতেও JCB মেশিন এনে বিশ্ববিদ্যালয় ভাঙতে কেউ দেখেনি। তাই এবার JCB চলবে তৃণমূলের পার্টি অফিসে। যত মাওবাদী তৈরির কারখানা, উগ্রপন্থী তৈরির কারখানা গুঁ-ড়ি-য়ে দেওয়া হবে।” এরকম ভাবেই তৃনমূলের প্রতি রাজনৈতিক মন্তব্য করেন তিনি।এদিন মাঠ পরিদর্শনকালে তৃনমূলের স্থানীয় নেতা-কর্মীরা “গো ব্যাক” পোষ্টারের মাধ্যমে অনুপম হাজরার প্রতি ক্ষো-ভ প্রর্দশন করেন।

https://www.facebook.com/anupam.hajra.71/posts/381947879632552

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও পড়ুন

Back to top button