‘আপনার মধ্যে বিন্দুমাত্র মানবিকতা থাকলে হাথরাস কাণ্ডের ধ’র্ষ’ণ মুখ খুলুন’ মোদিকে নিশানা অভিষেকের!

নিজস্ব প্রতিবেদন :-উত্তরপ্রদেশের হাতরাস এ ঘটে যাওয়া গণধ-র্ষ-ণের ম ঘটনাকে কেন্দ্র করে উত্তপ্ত রাজনীতি । তার সাথে সাথে উত্তপ্ত গোটা দেশ। রীতিমতো ক্ষোভে ফাটছে দেশবাসী । বিভিন্ন মোমবাতি মিছিল, বিক্ষো-ভ কর্মসূচি চলছে দেশজুড়ে । ছাত্র থেকে রাজনীতি নেতা-মন্ত্রীরা কেউই বাদ যায়নি এতে অংশগ্রহণ করতে। তার সাথে সাথে চলছে কটাক্ষ প্রশ্ন যুদ্ধ। সেরকমই প্রধানমন্ত্রীকে টুইট করে প্রশ্ন করলেন তৃণমূল সাংসদ অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য ১৪ দিন ধরে মৃ-ত্যু-র সঙ্গে লড়াই করে অবশেষে জীবনযুদ্ধে হার মেনেছে উত্তরপ্রদেশে ধর্ষিত হওয়া উচিত ১৯ বছরের মেয়েটি। এর পাশাপাশি উত্তরপ্রদেশ সরকার পরিবার বিনা অনুমতিতে রাতের অন্ধকারে নির্জন জায়গাতে পুড়িয়ে ফেলে ওই নির্যাতিতার দেহ । যা ঘিরে বেড়েছে উত্তেজনার মাত্রা আরও। পাশবিক এই অত্যাচারের সমালোচনা করতে বাদ যায়নি কেউই। কিন্তু দেশের প্রধানমন্ত্রী কেন চুপ তা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন তৃণমূল সাংসদ অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়।

এই ঘটনার নিন্দা করেছেন রাহুল গান্ধী। তিনি বলেছেন, ভারতের একটি মেয়েকে ধ-র্ষ-ণ করা হয়েছে। আর সেই ঘটনা ধামাচাপা দিতে তাঁর পরিবারের কাছ থেকে শেষকৃত্যের অধিকারটাও কেড়ে নেওয়া হয়েছে। এই কাজ খুবই আপত্তিজনক আর অন্যায়।-

যদিও যোগী আদিত্যনাথ অর্থাৎ উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী জানিয়েছেন দোষীদের কোনরকম বরদাস্ত করা হবে না । তার জন্য তিন সদস্য বিশিষ্ট একটি কমিটি গঠন করা হয়েছে যা ৭ দিনের মধ্যে তদন্ত এর রিপোর্ট পেশ করবে । ফাস্ট ট্রাক আদালতে শুনানি হবে এই মামলার। এমনটাই জানিয়েছেন উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী।

কিন্তু ঐদিন তৃণমূল সাংসদ অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় টুইট করে প্রধানমন্ত্রীর কাছে প্রশ্ন করেন “১৫ দিন লড়াইয়ের পর জীবন যুদ্ধে পরাজিত হয়েছে হাথরাসের নির্যাতি-তা। এরপরেই মৃতদেহের অবমাননা করছে উত্তর প্রদেশ সরকার। অথচ হাথরাস নিয়ে নরেন্দ্র মোদী চুপ রয়েছেন। যদি এখনও কোনো পাল্টা প্রতিক্রিয়া পাওয়া যায়নি নরেন্দ্র মোদী কাছ থেকে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও পড়ুন

Back to top button