‘সরকারি পরিষেবা পেতে কেও কাটমানির টাকা নিলে পুলিশে অভিযোগ করুন’, কাটমানির বিরুদ্ধে কড়া মুখ্যমন্ত্রী!

নিজস্ব প্রতিবেদন:-সালটা ২০১১ পশ্চিমবঙ্গে ৩৪ বছরের সিপিএম কে ক্ষমতা থেকে সরিয়ে রাজ্যের ক্ষমতায় আসে তৃণমূল কংগ্রেস। গোটা রাজ্য ছেড়ে যায় সবুজ আবির এ । রাতারাতি হতে থাকে দলবদল এর ঘটনা । কিন্তু কয়েক বছর গড়াতে না গড়াতেই শুরু হয় বিরোধীদের চ-ক্রা-ন্ত । সরকারের বিভিন্ন কাজকর্ম নিয়ে প্রতিনিয়ত উঠতে থাকে অ-ভি-যো-গ । তার মধ্যে কিছুটা সত্যি কিছুটা ভুল । কেউ জেনে বুঝে করছে কেউ আবার না জেনে করছে। আবার কেউ উ-স্কা-নির প্রভাবে করছে ।

কিন্তু সরকার চেষ্টা করেছেন যতটা সম্ভব এই অভিযোগ এড়াতে । নিজের সবটা দিয়ে সরকার চেষ্টা করেছেন রাজ্যের প্রতিটা মানুষের মানুষের যাতে সুবিধা হয় সে দিকে খেয়াল রাখতে । কখনো কন্যাশ্রী ,কখনো খাদ্যশ্রী, কখনোবা সবুজ সাথী প্রকল্প এনে হাসি ফুটিয়েছে গরিব মানুষদের মুখে। যা পরবর্তীকালে বিশ্ব দরবারে শ্রেষ্ঠ প্রকল্প হিসেবে সম্মানিত হয়েছে । কিন্তু এর পাশাপাশি বিরোধীরা শাসকদলের বি-রু-দ্ধে এনেছে বিভিন্ন রকম আরোপ । কখনো কখনো কাটমানি, ত্রিপল চোর, চাল চোর বলে কটাক্ষ করেছেন অনেকে ।

কাটমানি সঙ্গে ওতপ্রোতভাবে জড়িয়ে থাকে তৃণমূল কংগ্রেসের নাম – এমনটা মনে করেন বিরোধী দলের অনেকে । আবার কেউ কেউ মনে করেন যে তৃণমূল কংগ্রেসের জন্ম হয়েছে কাটমানির জন্য। বেশ কিছুদিন আগে আমফানের সময় ত্রাণ বিলি করার সময় সিপিএমের নেতা ক্রান্তি গাঙ্গুলী প্রকাশ্যে বলেন যে কাটমানি শুরু হয়েছে সিপিএমের আমল থেকেই । তবে অনেকে মনে করেন এই কাটমানির রমরমা পরিবেশ তৈরি হয়েছে একমাত্র তৃণমূলের আমলে। এবার সেই কাটমানি বিরুদ্ধে স-র-ব হলেন স্বয়ং মুখ্যমন্ত্রী।

ঐদিন ঝারগ্রাম এর প্রশাসনিক বৈঠক থেকে তিনি কড়া ভাষায় নির্দেশ দেন সকলের উদ্দেশ্যে। তিনি বলেন যে যেকোন উপায়ে বন্ধ করতে হবে কাটমানি নেওয়ার ঘটনা । তিনি বলেন যে” গরিব মানুষের সরকারি সাহায্য পাওয়া তাদের অধিকার। সে অধিকার থেকে কেউ তাদের বঞ্চিত করতে পারবে না ।

এবং সেই অধিকার বা সরকারি পরিষেবা পেতে গেলে যদি কেউ টাকা নেওয়ার গল্প বলে থাকে তাহলে সরাসরি তার বিরুদ্ধে পুলিশের কাছে অভিযোগ করুন । পুলিশ এর ব্যবস্থা নেবে “। রীতিমতো এই বক্তব্য সামনে আশাতে অনেকের মুখে পড়েছে কুলুপ । অনেকে আবার থেকে গেছে নিশ্চুপ । তবে মুখ্যমন্ত্রী এরূপ মন্তব্যের পর রীতিমতো খুশি বিরোধী দলের অনেকেই। ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও পড়ুন

Back to top button