দারুন কায়দায় বাড়ির টবে দুর্দান্ত বড়ো ও দারুন রসযুক্ত লেবু ফোলানোর সহজ পদ্ধতি, ফলন পাবেন এক মাসেই!

নিজস্ব সংবাদদাতা: মহামারী করোনার সময়ে ভিটামিন সি ট্যাবলেট ভীষন পরিমাণ বিক্রি হচ্ছে। ডাক্তাররাও পরামর্শ দিয়েছেন দিনের খাদ্যাভাসে ভিটামিন-সি -এর পরিমাণ বজায় রাখতে। এই ভিটামিন সি এর অন্যতম উৎস পাতিলেবু। আমাদের সকলের কমবেশি পাতি লেবু খাওয়ার অভ্যাস রয়েছে,তবে হয়তো সকলের জানা নেই এর পাতিলেবুর গুনাবলী।এটি যেমন আপনার ওজন কমাতে সাহায্য করে তেমনি ক্যানসারকে দূরে রাখে আপনার থেকে।এমনকি আপনার কিডনিতে পাথর জমতে দেয়না এই পাতিলেবু।

প্রতিদিন ঘুম থেকে উঠে গরম জলের সঙ্গে সামান্য মধু ও গোটা লেবু খেতে পারলে আপনার ত্বকের জেল্লার সাথে আপনার শরীরের সুস্থতা ফিরে আসবে যা আপনার ওজন বৃদ্ধির কারনে হারিয়ে গিয়েছিল। তবে বাজারে অনেক সময় খুব বেশি দামে পাতিলেবু বিক্রি হয়।

কিন্তু আপনার কাছে সুযোগ রয়েছে বাজার থেকে পাতিলেবু না কিনে নিজের বাড়িতেই পাতি লেবুর গাছ লাগানোর।সেখান থেকেই নিজের প্রয়োজনের লেবু আহরণ করতে পারবেন তেমনি বেশি উৎপাদন হলে বিক্রিও করতে পারবেন।

লেবু চাষের জন্য মাঝারি সাইজের টপ বস্তা গামলা যেকোনো একটা ব্যবহার করতে পারেন। লেবু চাষের সুবিধা হল বছরের যে কোন সময় চাষ করতে পারবেন।তবে লেবুজাতীয় ফলের চাষ সবথেকে বেশি ভালো হয় গ্রীষ্মকাল ও বর্ষাকালে অর্থাৎ বৈশাখ থেকে আশ্বিন মাসের মধ্যে।

লেবু চাষের সময় দোআঁশ মাটি ব্যবহার করবেন এবং খেয়াল রাখবেন গাছের গোড়ায় যেন জল জমে না থাকে। বেশি জল জমে গেলে শিকড় পচে যায় এবং গাছ মারা যায়। গাছ লাগানোর আগে টবে মাটি ও জৈব সার দু’সপ্তাহ রেখে দেবেন। সার হিসেবে গোবর সার ও সরষের খোল হালকা করে মিশিয়ে নেবেন। যখন মাটি ঝরঝরে হয়ে যাবে তখন গাছ লাগাবেন ।

বর্ষা আসার আগে নিয়মিত কীটনাশক স্প্রে করবেন যাতে পোকা না আসে, তবে কখনই ফলন্ত গাছে কীটনাশক দেবেন না ।লেবু চাষ হয়ে গেলে মাঝে মাঝে গাছের ডাল ছাঁটাই করে দেবেন তাহলে গাছের বৃদ্ধি ও ফলন দুটোই ভালো হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও পড়ুন

Back to top button