বাড়ির ছাদে টবে খুব সহজে দারুন পদ্ধতিতে করুন ফুলকপি চাষ, এভাবে বীজ পুতলে এক সপ্তাহেই পাবেন দারুন ফলন, রইলো পদ্ধতি

নিজস্ব প্রতিবেদন: আপনিও পারবেন আপনার বাড়ির ফাঁকা জায়গায় ফুলকপি চাষ করতে। অতি সহজেই আপনি ফুলকপি চাষ করে হোম গ্রোউন সবজির স্বাদ উপভোগ করতে পারবেন।

ভারতে শীতকালীন সবজি হিসেবে পরিচিত ফুলকপি। ফুলের মত দেখতে এই সবজি আমাদের দেশে বিপুল পরিমাণে চাষ হয়ে থাকে। আপনি ইচ্ছা করলে আপনার বাড়ির যে কোনো ফাঁকা জায়গায়, ফুলকপির চাষ করতে পারবেন। আসুন জেনেনেজেনে নেওয়া যাক বাড়িতে এই ফুলকপির চাষ করবার পদ্ধতি।

ফুলকপি চাষ করার জন্য দোআঁশ অথবা বেলে দোআঁশ মাটি ব্যবহার করতে পারেন। এই মাটিতে ফুলকপি চাষে ভাল ফলন পাবেন।

বাড়িতে ফুলকপি চাষ করতে হলে আপনি প্রথমে উপযুক্ত পাত্র, যেমন আপনি ছোট/ মাঝারি সাইজের টব কিংবা অর্ধেক ড্রাম বাছাই করুন।

সংকর জাতের ফুলকপি আপনাদের দেশে চাষ করা হয়। এই জাতের ফুলকপির চাষে আবহাওয়া অনুকূল। তবে মাঘী, অগ্রহায়ণী, পৌষালী, বারি ফুলকপি-১, ২ ইত্যাদি জাতের চাষ আপনি করতে পারেন।

প্রথমে, বীজ থেকে চারা তৈরি করার জন্যে, বীজ জোগাড় করুন। বীজ মাটিতে লাগিয়ে দিন এবং বীজে নিয়ম করে জল দিন। কয়েক দিন পর বীজ থেকে চারা বের হবে।

বাড়িতে আপনার বাছাই করা যায়গায় আগস্ট মাস থেকে সেপ্টেম্বর মাসের মধ্যে চারা রোপণ করুন। এ সময় রোপন করলে ফলন ভালো পাওয়া যায়।

আপনি বাড়িতে তৈরি করা জৈব সার ব্যবহার করতে পারেন। যেমন তরকারীর খোসা, ফলের খোসা, ইত্যাদি। এছাড়াও অজৈব সার দোকান থেকে কিনে প্রয়োগ করতে পারেন।

ফুলকপি গাছে বিভিন্ন সময়ে ধসা রোগ, ক্লাব রুট, ডাউনি মিলডিউ, পাতা পচা রোগ এসবের জন্য আপনাকে পরিচর্যা করতে হবে। এইসব রোগ পোকার আক্রমণ থেকে বাঁচার জন্য কিছুদিন পর পর গাছে কীটনাশক স্প্রে করতে হবে।

মাটি বেশি শুকিয়ে গেলে জল দিতে হবে। গাছের গোড়ায় আগাছা জমতে দেওয়া যাবেনা। আগাছা হয়ে গেলে নিড়ানী দিয়ে সরিয়ে ফেলতে হবে।

ফুলকপির চারা রোপণের তিন মাস পর ফলন পাবেন। গাছের ফুল পরিপক্ব হয়ে গেলে, সেগুলো সংগ্রহ করুন এবং সংরক্ষণের ব্যবস্থা করুন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও পড়ুন

Back to top button