24 হাজার কিলোমিটার গতিতে পৃথিবীর দিকে ধেয়ে আসছে জ্বলন্ত গ্রহাণু, কবে আছড়ে পড়তে পারে?

নিজস্ব প্রতিবেদন :-একেতো বছরের শুরুতেই দুঃসংবাদ ডেকে এনেছিল এই মহামারী করোনা । তার রেশ এখনো কাটেনি রীতিমতো । স্বাভাবিক জীবনের সঙ্গে ওতপ্রোতভাবে জড়িয়ে রয়েছে এই অতি মারি । কত যে দুঃসংবাদ প্রতিদিন কানে আসছে তার ঠিক নেই কিন্তু তার মধ্যেও ফের আরও একবার বড় দুঃসংবাদ দিল মার্কিন স্পেস গবেষণা সেন্টার নাসা ।

মার্কিন স্পেস রিসার্চ সেন্টার নাসা গত সেপ্টেম্বর মাসে একটি গ্রহাণু সন্ধান পায়। যা কিনা চওড়া তে ১১৭ থেকে ১২০ ফুট এবং যা এই মুহূর্ত এ ২৪০৪৬ কিলোমিটার প্রতি ঘণ্টা গতি নিয়ে ধেয়ে আসছে পৃথিবীর দিকে । এই গ্রহ টির নাম ” 2020 RK2 ” । বিশালাকৃতির গ্রহাণুর পৃথিবী থেকে দেখা যাবে না ।

ইস্টার্ন জোনের সময়ের হিসেবে দুপুর একটা ১২ মিনিটে , ব্রিটেনের সময় অনুযায়ি সন্ধ্যা ৬টা বেজে ১২ মিনিটে পৃথিবীর ২,৩৭৮, ৪৮২ মাইল দূর থেকে কান ঘেঁষে যাবে এই গ্রহাণু৷  এর পাশাপাশি আমরা জানি রাখি ২০১২ সালে এরকম পৃথিবী ধ্বংসের কথার সামনে নিয়ে এসেছিল নাসা । যদিও দীর্ঘ আট বছর কেটে যাওয়ার পর এরকম কোন ঘটনা আমাদের সাথে ঘটেনি । তবে নাসার পক্ষ থেকে জানিয়েছেন আগামী ১০০ বছরে কমপক্ষে ২২ টি মহাজাগতিক গ্রহাণুর সাথে পৃথিবীর ধাক্কা লাগার প্রবল সম্ভাবনা রয়েছে।

সেই বাইশটি গ্রহাণুর মধ্যে সবথেকে বড় এবং বৃহৎ আকারে গ্রহাণুটি হল 29075 । এবং যার আকার একটি এম্পায়র স্টেট বিল্ডিং এর আকার এর তিনগুণ তিনগুণ এর তিনগুণ তিনগুণ । এবং এটি সম্ভাব্য ২৮৮০ সালে পৃথিবীর সাথে ধাক্কা লাগতে পারে ।

এর পাশাপাশি নাসা জানিয়েছে ২০২০ থেকে ২০২৫ -র মধ্যে 2018 VP1 পৃথিবীর সবচেয়ে কাছ দিয়ে যাবে৷ ৭ ফুট এর আয়তন হওয়ায় সংঘর্ষ হলেও খুব বড় ক্ষয়ক্ষতি হতে পারবে না৷ এরচেয়ে আকারে বড় ১৭৭ ফুট। Asteroid 2005 ED224 ২০২৩ -২০২৪-র মধ্যে পৃথিবীর কাছ দিয়ে যাবে৷ এটাও পৃথিবীর সঙ্গে সংঘর্ষ করতে পারে নাসার Sentry সিস্টেম এই সমস্ত মহাজাগতিক ঘটনার ওপর সর্বক্ষণ নজর রাখে৷ খুব স্বাভাবিকভাবে পুজোর আগে এরকম একটি দুঃসংবাদ কারোর ভালো লাগে না না কিন্তু এখন শুধু অপেক্ষা করার পালা ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও পড়ুন

Back to top button