SBI গ্রাহকদের জন্য ফের বড় খবর, টুইট করে জানালেন SBI এর চেয়ারম্যান!

নিজস্ব প্রতিবেদন :-দেশজুড়ে যখন আর্থিক সংকট। রীতিমতো টলমল খাচ্ছে দেশের বিভিন্ন ব্যবস্থা । ঠিক তখনই একের পর এক অত্যাধুনিক পদ্ধতির কথা ঘোষণা করছে ভারতের সবচেয়ে জনপ্রিয় ঋণ প্রদানকারী সংস্থা ” স্টেট ব্যাংক অফ ইন্ডিয়া ” তারা সম্প্রতি জানিয়েছে YONO DIGITAL প্ল্যাটফর্ম এর কথা । এবং এর পাশাপাশি অন্যান্য ব্যাংক YONO ব্যবহারের আবেদন জানিয়েছে । pay per use model’ ব্যবহার করে ঋণদানকারী ক্ষুদ্র ব্যাংক, আঞ্চলিক গ্রামীণ ব্যাংক (আরআরবি) এবং সমবায় ব্যাংকগুলিকে প্ল্যাটফর্মে আকৃষ্ট করার প্রত্যাশা করে। কি এই YONO ? আসুন দেখে নেওয়া যাক ।

অন্যান্য ব্যাংকের ব্র্যান্ড ব্যবহার না করে খুব সহজে ব্যবহার করা যাবে Yono ডিজিটাল প্ল্যাটফর্ম টি । এমনটাই জানিয়েছেন ব্যাংকের চেয়ারম্যান রজনীশ কুমার। তিনি এও জানিয়েছেন অন্যান্য ব্যাংক এস বি আই এর মূল ব্যাংকিং ব্যবস্থায় না গিয়ে এই অ্যাপ্লিকেশনের মাধ্যমে যোগাযোগ স্থাপন রাখতে পারে। এ বিষয়ে তিনি আরও দীর্ঘ ব্যাখ্যা করেছেন যদিও ।

তিনি বলেছেন “একবার ইন্টিগ্রেশন হয়ে গেলে, অন্যান্য ব্যাংকগুলি তাদের সঙ্গে API সংযুক্ত করে প্ল্যাটফর্মটি ব্যবহার করতে পারে। এটি অন্যান্য ব্যাংকগুলিকে তাদের নিজস্ব ব্র্যান্ডিংয়ের সাথে YONO প্ল্যাটফর্ম ব্যবহার করতে সক্ষম হবে। ধরুন, কেউ ব্যক্তিগত ঋণের API ব্যবহার করতে চান। আমরা এটির অনুমতি দিতে পারি।,” বলেন তিনি। যাইহোক, SBI একটি স্বাধীন প্ল্যাটফর্ম তৈরির আগে প্রথমে তার পূর্ণ সম্ভাবনাটি কাজে লাগাতে চায়।”

এসবিআই যদিও এর জন্য পৃথক একটি ব্যালেন্স শীট তৈরি করেছে । SBI YONO-এর জন্য পৃথক ব্যালান্সশিট প্রস্তুত করা শুরু করেছে যা জুনের এক চতুর্থাংশ সময়ের জন্য ২০০ কোটি টাকা থেকে নিট মুনাফা অর্জন করেছে এবং যার উপর প্রতিদিন ৩ লক্ষ ৮৫ হাজার ৬৭৫টি লেনদেন হয়।

ঋণদাতার লক্ষ্য ছিল বর্তমান ব্যবহারকারীর ভিত্তি ২.৭ কোটি থেকে ২০২১ সালের মার্চ মাসের মধ্যে গ্রাহকের আকার ৫০% এরও বেশি বাড়িয়ে ৪.২ কোটি করা হবে। ২০২০ সালের মার্চ থেকে আগস্টের মধ্যে মহামারী চলাকালীন ব্যাংকের ৭১ লক্ষ নতুন গ্রাহক যুক্ত হয়েছে। ২০২০ সালের আগস্টে ইয়োনোর সর্বমোট লেনদেন দ্বিগুণ হয়ে ১.১ কোটি হয়েছে, যা ২০২০ সালের মার্চ মাসে ৬৬ লক্ষ থেকে বেড়েছে।

কুমার আরও উল্লেখ করেছেন যে YONO প্ল্যাটফর্মটি কেবলমাত্র একটি মোবাইল অ্যাপ্লিকেশন নয়, তবে একটি ‘সর্বজনীন’ অভিজ্ঞতা। তার মতে, সুপার অ্যাপটির মূল্য ৪০ বিলিয়ন ডলার হতে পারে। তবে কোনও স্বাধীন সংস্থা সংস্থার মূল্যায়ন করেনি। এছাড়াও এই ডিজিটাল প্লাটফর্মে যদি কোন সমস্যা থেকে থাকে তা পরবর্তীকালে পুনরায় সমাধান করে নতুনভাবে লঞ্চ করা হবে । এমনটা আশ্বাস দিয়েছেন ব্যাংকের ম্যানেজার । এবার শুধু প্রয়োগের অপেক্ষা ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও পড়ুন

Back to top button