দুর্গাপুজোর আগেই দীঘা প্রেমীদের জন্য দারুন খুশির খবর শোনালোরাজ্য সরকার, খুশি আমজনতা!

নিজস্ব প্রতিবেদন:-দীর্ঘদিন লকডাউন এর ফলে গৃহবন্দি আমরা প্রত্যেকে । কাজেই মানসিক অবসাদের সাথে সাথে একটা একঘেয়েমি গ্রাস করেছে আমাদের জীবনকে । এই মত অবস্থায় এই একঘেয়েমি দূর করতে উপায় একটাই ঘুরতে যাওয়া। কিন্তু বাইরের পরিস্থিতি এখনো পুরোপুরি ভাবে স্বাভাবিক নয় ।

স্বাভাবিক নয় ট্রেন চলাচলও। তাহলে উপায় কি ? তবে এই মানসিক অবসাদ দূর করতে কাছেপিঠে পর্যটন জায়গা গুলি চাইলে ঘুরে আসা যেতেই পারে। সেখানে অবশ্য নেই কোন আপাতত নিষেধাজ্ঞা । ফের পুজোর আগে ভ্রমণপিপাসু দের জন্য এক বড় সুখবর নিয়ে এল এ রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

একদিকে কেন্দ্রের অসহযোগিতা, অন্যদিকে রাজ্যের কোষাগারে ঘাটতির মধ্যেই উৎসব মরসুমের আগেই রাজ্যবাসীকে নতুন উপহার তুলে দিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। রবিবার থেকে দিঘাতে ঘুরতে আসা পর্যটকদের মিলল এক নতুন গন্তব্য স্থল । কি সেই গন্তব্য স্থল জানাবো আপনাদের।

রবিবার দিঘার সৈকতে বনদফতরের উদ্যোগে প্রায় দু’কোটি টাকা ব্যয়ে ওশিয়ানা ঘাট থেকে যাত্রানালা পর্যন্ত প্রায় দীর্ঘ এক কিলোমিটার এলাকা জুড়ে বিনোদনমূলক পার্ক এর উদ্বোধন করলেন বনমন্ত্রী রাজীব বন্দোপাধ্যায়। তিনি বলেন বনমন্ত্রী বলেন, মুখ্যমন্ত্রীর স্বপ্ন দিঘাকে বিশ্ব পর্যটন মানচিত্রে তুলে আনা। তাই তার পরিকাঠামো উন্নয়ন-সৌন্দর্যায়নে জোর দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। প্রতিদিন মান্দারমনি-তাজপুর-শংকরপুর-দিঘা প্রমুখ সৈকত শহরে সরকারের কোনও না কোনও উন্নয়নী কর্মকান্ড চলছে।” আগামিদিনে দিঘা একটা অন্য রূপ পাবে বলে আশাবাদী রাজ্যের বনমন্ত্রী ।

এর পাশাপাশি তিনি আরো বলেন তিনি বলেন যে” মুখ্যমন্ত্রী চেয়ারে বসার পর সমুদ্র সৈকতে চেহারা দিন দিন পাল্টে গেছে । এখন এই সৈকত শহরে শুধুমাত্র দেশের নয় রাজ্যের নয় বরং বিদেশি পর্যটক আসে। যার ফলে পর্যটন শিল্পে ঘটেছে ব্যাপক উন্নতি ।” তবে পুজোর আগে এরকম একটি উপহার পেয়ে খুশি শহরবাসীর সাথে রাজ্যবাসীও।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও পড়ুন

Back to top button