ব্যাঙ্কে 12 কোটি টাকা তছরুপের অ’ভি’যো’গ, পুলিশি গ্রে’ফ’তা’র হলেন অর্জুন সিংয়ের ভাইপো!

নিজস্ব প্রতিবেদন :-খুব সম্ভবত এবার বাংলায় ক্ষমতা আসার জন্য প্রাণপণ চেষ্টা করছে বিজেপি। তাই ভোটের আগে তাদের প্রস্তুতি পৌঁছেছে মানুষের দরবারে। সেখান থেকে তারা জানার চেষ্টা করছে শাসকদলের বিরুদ্ধে তাদের কি কি অভিযোগ আছে এবং কি কি অসুবিধা সম্মুখীন হচ্ছে । সেই সমস্ত সমস্যাকে কেন্দ্র করে মূলত চলছে এই প্রস্তুতিপর্ব ।তার সাথে সাথে চলছে সভা মিটিং-মিছিল ।

তবে কোথাও যেন বিজেপি বার বার পিছিয়ে যাচ্ছে শুধুমাত্র উঠে আসা কয়েকটি অভি-যো-গে-র ভিত্তিতে ।কষ্ট করে পরিশ্রম করে মানুষের মনে যে বিশ্বাস তারা তৈরি করছে তা যেন নিমিষের মধ্যে ভেঙে যাচ্ছে ।আরো একবার এক বিস্ফোরক মন্তব্যের অভিযোগ এর স্বীকার হলেন গেরুয়া শিবির ।

ভাটপাড়া নৈহাটি যে সমবায় ব্যাংক আছে সেই সমবায় ব্যাংক থেকে টাকা জালিয়াতি করার অভিযোগ উঠল গেরুয়া শিবিরের বিরুদ্ধে । ইতিমধ্যেই ঘটনা সামনে আসাতে চর্চা শুরু হয়েছে রাজনৈতিক মহলে। তার সাথে সাথে কিছুটা ক্ষোভ প্রকাশ করেছে বি-রো-ধী দলের পক্ষ থেকেও । মানুষজন আস্থা হারিয়েছেন বিজেপির পক্ষ থেকে । এর আগেও বিভিন্ন শ্লীল-তা-হানি অ-ভি-যোগ উঠে এসেছিল বিজেপি কর্মীদের বিরুদ্ধে ।কিন্তু এবার উঠে এল ব্যাংক জালিয়াতি মতন অভি-যো-গ।

এবার সেই জালিয়াতির শি-কা-র হলেন স্বয়ং বিজেপি নেতা অর্জুন সিং এর ভাইপো সঞ্জয় সিং ওরফে পাপ্পু । তার বিরুদ্ধে সমবায় ব্যাংক থেকে ১২ কোটি টাকা জালিয়াতি করার অভিযোগ উঠে এসেছে সম্প্রতি। যদিও এই ঘটনাকে চক্রান্ত বলে মনে করছেন গেরুয়া শিবিরে একাংশ ।তবুও ভাটপাড়া পৌরসভা থেকে করা অভিযোগের ভিত্তিতে কিছুটা হলেও অস্বস্তিতে পড়েছে গে-রুয়া শিবির।

সূত্রানুসারে জানা যায় ভাটপাড়া পৌরসভার অভিযোগের ভিত্তিতে সঞ্জিতকে বেশ কয়েকবার ডেকে পাঠানো হয় ব্যারাকপুর কমিশনারেটের ডিডি অফিসে। গতকালও হাজিরা দেন তিনি। পুলিশের দাবি, বেশ কয়েক ঘণ্টা জিজ্ঞাসাবাদে সদুত্তর না মেলায় তাঁকে গ্রেফতার করা হয়।

পাশাপাশি, ভাটপাড়া পুরসভার করা একটি মামলার ভিত্তিতে গতকাল ব্যারাকপুর কমিশনারেটে হাজিরা দেন অর্জুন পুত্র পবন সিংহ, অর্জুনের আরেক ভাইপো সৌরভ সহ এক আত্মীয়। এই তিনজনের বিরু-দ্ধে বেআইনিভাবে একটি বেসরকারি সংস্থাকে ৪ কোটি টাকা বরাত পাইয়ে দেওয়ার অ-ভি-যো-গ দায়ের করেছে ভাটপাড়া পুরসভা। বারবার বিজেপির বিরুদ্ধে এরকম বি-স্ফো-র-ক একের পর এক অভিযোগ উঠে আসাতে রীতিমতো এক অস্বস্তি পরিস্থিতিতে পড়েছে দলের অনেক নেতা-কর্মী।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও পড়ুন

Back to top button