সারা ভারত বনধের ডাক, শুক্রবার বন্ধ থাকতে পারে রেল থেকে রাস্তা!

নিজস্ব প্রতিবেদন:- ২০২০ তে দাঁড়িয়ে এই মুহূর্তে সব থেকে বড় খবর যেটি সেটি হল” কৃষি বিল “। সম্প্রতি কেন্দ্রীয় সরকার কর্তৃক ৭ টি গুরুত্বপূর্ণ বিল পাস করানো হয়েছে রাজ্যসভায় । তার মধ্যে অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ হলো ” কৃষি বিল” । কিন্তু এই বিলের পাস করার সাথে সাথেই শুরু হয় বিরোধিতা। বিরোধিতা করে কৃষক সংগঠন থেকে শুরু করে ওলা চালক, ট্যাক্সিচালক এবং বিভিন্ন রাজনৈতিক দলগুলি । রাস্তায় রাস্তায় মিছিল অবরোধ দেখা যাচ্ছে ইতিমধ্যেই । শুরু হয়েছে দেশজুড়ে ব্যাপক চাঞ্চল্য। রীতিমতো রাস্তায় নেমে প্রতিবাদ শুরু করেছে তৃণমূল থেকে শুরু করে কংগ্রেস। তবে আগামী শুক্রবার গোটা ভারত বনধের ডাক দিল বিভিন্ন কৃষক সংগঠনগুলির ।

লকডাউন নজরে এমনিতে রাস্তাঘাটে কম যানবাহন। সেই অবস্থায় দাঁড়িয়ে ভারতবর্ষের সমস্ত কৃষক সংগঠনগুলির দেওয়া বন্ধের ডাক জনজীবনের ঠিক কতটা প্রভাব ফেলবে তা প্রশ্নের মুখে। তবে খুব সম্ভবত পাঞ্জাবে হতে চলেছে সম্পূর্ণ লকডাউন ।আমরা জানি পাঞ্জাব এবং হরিয়ানার কৃষি ভিত্তিক রাজ্য। ভারতবর্ষের প্রায় অধিকাংশ ফসল সেই রাজ্য থেকে রপ্তানি হয়ে থাকে । কৃষি বিল প্রত্যাহারের দাবিতে সেই রাজ্যের কৃষক সংগঠন তথা ভারতের সমস্ত সংগঠন বন্ধের ডাক দিল শুক্রবার ।

অল ইন্ডিয়া ফারমার্স ইউনিয়ন, অল ইন্ডিয়া কিষাণ সংঘর্ষ কো অর্ডিনেশন কমিটি, অল ইন্ডিয়া কিষাণ মহাসংঘ একযোগে বনধের ডাক দিয়েছে। ২৫ সেপ্টেম্বর শুক্রবার এই বনধের ডাক দেওয়া হয়।অল ইন্ডিয়া ফারমার্স ইউনিয়ন, অল ইন্ডিয়া কিষাণ সংঘর্ষ কো অর্ডিনেশন কমিটি, অল ইন্ডিয়া কিষাণ মহাসংঘ একযোগে বনধের ডাক দিয়েছে। ২৫ সেপ্টেম্বর শুক্রবার এই বনধের ডাক দেওয়া হয়।

কৃষি বিল প্রত্যাহার দাবিতে দেশজুড়ে ব্যাপক চাঞ্চল্য দেখা যাচ্ছে ইতিমধ্যে। কংগ্রেস জানিয়েছে প্রায় দু’কোটি কৃষকের স্বাক্ষর সমেত তারা নামতে চলেছে পথে ।দুমাস ধরে চলবে তাদের এই আন্দোলন। এর পাশাপাশি সংসদে দেখা গেছে ব্যাপক বিতর্ক । এই বিল প্রত্যাহারের দাবিতে ইতিমধ্যে আট সাংসদকে বহিষ্কার করেছে সরকার । রীতিমতো ক্ষোভে ফাটছে দেশ ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও পড়ুন

Back to top button