আয়ুষ্মান ভারত প্রকল্প বাংলায় কেনো এখনো চালু হতে দেয়নি রাজ্য সরকার? কেন রূপায়ন হয়নি? নোটিস পাঠাল সুপ্রিম কোর্ট

সামনেই 2021 এর লোকসভা নির্বাচন আর তাকেই হাতিয়ার করে কিছু ঘটনা আমাদের সামনে উপস্থিত।সম্প্রতি জানা যায় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র সিং মোদীর ঘোষিত প্রধানমন্ত্রী জন আরোগ্য যোজনা।এই যোজনা কেন কিংবা কি কারনে চালু করা যায়নি সেই অর্থে একটি জনস্বার্থ মামলা মারফত সুপ্রিম কোর্ট চার-চারটি রাজ্যকে নোটিশ পাঠায় তার মধ্যে রয়েছে বাংলা অর্থাৎ পশ্চিমবঙ্গ, ওড়িশা ,তেলেঙ্গানা এবং দিল্লি। এই সমস্ত সংশ্লিষ্ট 4 টি রাজ্য কে নির্দেশ দেশ পাঠায় দেশের সর্বোচ্চ আদালত।

প্রধানমন্ত্রী ঘোষিত এই যোজনায় 5 লক্ষ টাকা পর্যন্ত চিকিৎসা বীমার সুযোগ পাওয়া যায়। এই প্রকল্পটি নিয়ে গত লোকসভার ভোট জমে উঠেছিল এই যোজনা কে কেন্দ্র করে।বর্তমানে বিভাস মন্তব্য করে বসেন বাংলার কিছু বিজেপি অধিকর্তারা তিন তারা মন্তব্য করেন যে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের জন্য নাকি সাধারণ সাধারণ মানুষ এই যোজনা থেকে বঞ্চিত কিন্তু তার পাল্টা মন্তব্য মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় জানান প্রেস কনফারেন্সে স্বাস্থ্য সাথী প্রকল্পের কথা। তিনি একথা জানান আয়ুষ্মান ভারত প্রকল্প রূপায়ণ করা হবে না।

গুনতি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় জানান রাজ্যের এই প্রকল্পে কিছুটা অংশীদারিত্ব থাকলেও সম্পূর্ণভাবে এই প্রকল্পকে নিজেদের বলে ঘোষণা করছে কেন্দ্রীয় সরকার।তার সাথে সাথে ও উড়িষ্যা তেলেঙ্গানা দিল্লিতেও নাগো হয়নি এই প্রকল্প আর তাকে কেন্দ্র করে জনস্বার্থ মামলা দায়ের করা হয় দেশের সর্বোচ্চ আদালত সুপ্রিম কোর্টে।বুদ্ধিজীবী কিছু মানুষেরা দাবি করেন কেন্দ্রীয় যোজনা লাগু করা হয়নি সেটা অসাংবিধানিক বলে গণ্য করা হয়। চিটি কিনা সংবিধানের 14 এবং 21 নম্বর ধারার পরিপন্থী।

সম্প্রতি দেশের সর্বোচ্চ আদালত সুপ্রিম কোর্ট এই যোজনা চালু করা হয়নি কেনোতার নির্দিষ্ট কারণ জানতে 4 রাজ্যকে অতিসত্বর নির্দেশ পাঠানোর ব্যবস্থা করেন। গতকাল সম্প্রতি কেন্দ্র সরকার ঘোষিত এই যোজনা কে হাত করেই বাংলার মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সরকারকে সরকারকে নিশানা করেছেন বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি জেপি নাড্ডা। তার বিরুদ্ধেও পাল্টা জবাব দেন তৃণমূল কংগ্রেস।

তাদের দাবি 2016 সালে রূপায়িত হওয়া সাথী প্রকল্পের সম্পূর্ণ হুবহু নকল এই পিএম কেয়ার যোজনা।একটি এছাড়াও তৃণমূল কংগ্রেস বলে স্বাস্থ্য সাথী প্রকল্পের পুরো অর্থাৎ 100% অর্থ দেয় রাজ্য সরকার কিন্তু কেন্দ্রঘোষিত ওই যোজনা তে মাত্র 60% অর্থ দেয় কেন্দ্রীয় সরকার।শাশ্বতী প্রকল্পে উপকৃত 7.5 কোটি মানুষ কিন্তু আয়ুষ্মান ভারত প্রকল্পের 12.5 কোটি মানুষকে শুধুমাত্র ই কার্ড দেওয়া হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও পড়ুন

Back to top button